কবিতা  | গুচ্ছকবিতা

তিন কবিতা । এহসান হায়দার

তীব্রতা

ব্যক্তিগত স্বপ্নের হ্রদে—তোমায় ডুবিয়ে মারি
প্রাণঘাতী এক আত্মার প্রেমিক
কব্জিসন্ধির কতটুকু দানে হয়েছ
আলো ও ঈশ্বরীয়;
কোঁকড়াচুলের ভাঁজে ভাঁজে লেখা
সবটুকু কেতকী রঙেই তার চিহ্ন যেন।

শিশুর মতোন

তুমি যেন শিশুর মতোন—ফের আমারে আদর করো
সবুজ ঘাসেদের পর; পরখ করা ফড়িঙ ও জ্যোৎস্নায়
মাটির শরীর হয়ে ভেসে আছে ময়না যেন তোমার দৃষ্টি।
ঈষৎ জলেশ্বর পটু আমি—কাদামাখা মুখোশ পরে নামি
গোলাপ ও পায়রার মুক্তোর খোঁজে, অথচ সকলি যেন
স্নেহকাতর মাছেরা শুষে নেয় আমার আয়ু ও সময়।
তবুও শিশুসকল আর কী নামে নীরব সন্দেহে?
যখন—শিশুর মতোন একটু করে ছুঁয়ে যাও পট

এসো রহস্য খুলি—পৃথিবীতে যেভাবে নামে রোদ

এসো রহস্য খুলি—পৃথিবীতে যেভাবে নামে রোদ ও বৃষ্টিরা;
পেপুলের সুগভীর মুকুরের মতো নামি
গোলাপবাগানে—মান্দারবৃক্ষের পরিচ্ছন্নতার পর
শস্যাদি দিই ছড়িয়ে আর এতোকাল অজীর্ণতার
সময় পেরিয়ে তুমি কেঁপে ওঠো, জ্বলে ওঠো—
ঠুনকো ইটের মতো শব্দেরা নাচতে থাকে ঠোঁটে।
সম্ভবত শস্য বলে—কিংবা গোলাপ বাগানের পর
ঝরনার সুশীতল জল ছুঁয়ে আমি নেমেছি; কিন্তু
মরুভূমি সংলগ্ন ক্লান্তিহীন জাহাজ নোঙরযোগ্য
কী—
অথবা বিনিদ্র কৌতুহলে প্রাচীনতম ফুল কী তুমি
চিনেছো—না কি এসবই গোপন কারুকাজ!
যদিবা তুমি চুপ থাকো বসন্ত আঘ্রাণে—তবুও
জেনে রেখো বৃষ্টি নামবে—মনে এবং তোমার
পায়রার বুনো ফুলের পাঁপড়িযূথীতে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  




  • এহসান হায়দার says:

    কাঁটাচামচ- ছোটকাগজ একদা প্রকাশ হতো কাগজে, মলাটবদ্ধ এটা নান্দনিক ছিল। সুনামও কুড়িয়েছিল। এর সাথের সকলেই কর্মব্যস্ত এখন। কাগজটি এখন আর বের হয় নাহ। কাগজে যখন বের হতো সে সময়ে এর সাথে জড়িয়ে ছিলাম। এখন নতুন করে কবি ফারহান ইশরাক এটি ওয়েব ম্যাগ করার যে প্রচেষ্টা চালিয়েছেন তার জন্য ধন্যবাদ।

    আর একই সাথে আমার এই তিনটি কবিতা প্রকাশ হল এখানে ভালো লাগলো। কাঁটাচামচ- এর পথচলা অব্যাহত থাকুক।

  • মন্তব্য করুন

    আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে নিচের মন্তব্য-ফর্ম ব্যবহার করুন করুন: